বন্ধ করুন

জেলার বিন্যাস

কোচবিহার জেলা প্রশাসন

প্রশাসনিক বিন্যাস
রাজস্ব উপ-বিভাগ (5 নম্বর) :~ উন্নয়ন ব্লক বা পঞ্চায়েত সমিতি (12 নম্বর) :~
(1) কোচবিহার সদর (1) কোচবিহার – ১ (7) মাথাভাঙ্গা – ২
(2) দিনহাটা (2) কোচবিহার – ২ (8) মেখলিগঞ্জ
(3) মাথাভাঙ্গা (3) দিনহাটা – ১ (9) সিতাই
(4) মেখলিগঞ্জ (4) দিনহাটা – ২ (10) শীতলকুচি
(5) তুফানগঞ্জ (5) হলদিবাড়ি (11) তুফানগঞ্জ – ১
(6)মাথাভাঙ্গা –১ (12) তুফানগঞ্জ – ২
পঞ্চায়েত সমিতির সংখ্যা: 12 জনবসতিপূর্ণ গ্রামের সংখ্যা: 1132টি পৌরসভার সংখ্যা: 6
গ্রাম সংসদের সংখ্যা: 1714 মৌজার সংখ্যা: 1202 থানার সংখ্যা: ১৬
গ্রাম পঞ্চায়েতের সংখ্যা: 128টি  –  –


কোচবিহারে পঞ্চায়েত রাজ প্রতিষ্ঠানের প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন

কোচবিহার জেলায় ১২৮টি গ্রাম পঞ্চায়েত , ১২টি পঞ্চায়েত সমিতি এবং একটি জেলা পরিষদ রয়েছে। এগুলি স্থানীয় স্ব-সরকারের প্রতিষ্ঠান হিসাবে। পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েত আইন, ১৯৭৫-এর বিধান অনুযায়ী P&RD বিভাগের তত্তাবধানে , নির্দেশিকা এবং সহায়তায় জেলায় সফলভাবে কাজ করছে।

গ্রাম সংসদ এবং গ্রাম সভাগুলির মতো বিধিবদ্ধ সভাগুলি বছরের নির্ধারিত মাসে নিয়মিতভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বছরের পর বছর ধরে এসব সভায় মানুষের অংশগ্রহণ বেড়েছে। ব্লক স্তরে এবং জেলা স্তরে ব্লক সংসদ এবং জেলা সংসদের সভাগুলি নিয়মিতভাবে P&RD বিভাগ দ্বারা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

এটা সত্য যে এই জেলার মানুষ পর্যায়ক্রমে পঞ্চায়েত নির্বাচনে তাদের ব্যাপক অংশগ্রহণের মাধ্যমে যথেষ্ট রাজনৈতিক পরিপক্কতা দেখিয়েছে। তারা সক্রিয়ভাবে গ্রাম সংসদের সভা এবং গ্রাম উন্নয়ন সমিতি গঠনের সময় অংশগ্রহণ করে। তবুও এটি আরেকটি সত্য যে প্রায়শই আমাদের পঞ্চায়েত সমিতিগুলি এবং আরও বেশি করে আমাদের গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি সভাপতি বা প্রধান দ্বারা এক ব্যক্তি হিসাবে কাজ করার প্রবণতা দেখিয়েছে। সম্মিলিত সিদ্ধান্ত গ্রহণে অংশগ্রহণ ধীর এবং ইচ্ছাকৃত।স্বতন্ত্র পঞ্চায়েতের কল্পনা প্রায়শই তার নির্বাচনী এলাকার এখতিয়ারের পিছনে যায় না। GPs জুড়ে এমনকি সামসাদ জুড়ে ব্লক স্কিমগুলির কথা না বলার সিদ্ধান্তগুলি খুব কমই বিবেচনা করা হয় এবং বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাব করা হয়। অনেক সদস্য এখনও জিপি এবং পিএস অফিসগুলিকে রাস্তা নির্মাণের বোর্ড হিসাবে দেখেন, ড্রেন এবং নালা। স্বাস্থ্য ও শিক্ষার মতো সামাজিক খাত এখনও অনেক পঞ্চায়েতের আলোচ্যসূচির তালিকায় রয়েছে। তাই প্রথম স্থানে জেলার গুরুত্বপূর্ণ হস্তক্ষেপগুলির মধ্যে একটি হল নিয়মিতভাবে পঞ্চায়েত কর্মচারিদের দক্ষতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া।

দ্বিতীয়ত, গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদের সমস্ত সরকারী প্রতিষ্ঠানে পর্যাপ্ত পরিকাঠামো এবং জনশক্তি সহায়তা দেওয়া হয়েছে। সকলেরই পাকা বিল্ডিং, পর্যাপ্ত আসবাবপত্র এবং কম্পিউটার, ফ্যাক্স মেশিন সহ অফিসিয়াল সরঞ্জাম এবং এমনকি ব্রড ব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ জিপি স্তর পর্যন্ত অনুমোদিত হয়েছে। সকলেই সুসংযুক্ত এবং বিপুল সংখ্যক কর্মকর্তা ও সহায়তা গোষ্ঠীর কর্মী সরবরাহ করা হয়েছে।
তৃতীয়ত, নির্দেশমূলক উন্নয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্জন হল যে সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদ সহ পঞ্চায়েত আইনের বিধান অনুসারে এর অনুমোদিত উপ-আইন রয়েছে। এটি পঞ্চায়েত সংস্থাগুলির রাজস্ব এবং সংস্থানগুলিকে একত্রিত করতে ব্যাপকভাবে সহায়তা করেছে। এসব সম্পদ দিয়ে প্রতিষ্ঠানের সম্পদ সৃষ্টি ও রক্ষণাবেক্ষণের উন্নতি হয়েছে।

চতুর্থত, জেলা পরিষদ এবং সমস্ত ১২টি পঞ্চায়েত সমিতির অ্যাকাউন্টগুলি IFMS (ইন্টিগ্রেটেড ফাইন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম) এর মাধ্যমে সম্পূর্ণরূপে কম্পিউটারাইজড করা হয়েছে। একইভাবে অনেক হিসাবে ৫৫ সংখ্যা. গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি P & RD বিভাগের GPMS প্রকল্পের অধীনে তাদের অ্যাকাউন্টগুলি কম্পিউটারাইজ করেছে৷ এই সমস্তগুলি কার্যকর তহবিল ব্যবহার, ভাল আর্থিক ব্যবস্থাপনা এবং আর্থিক লেনদেনে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে সহায়তা করেছে।

পঞ্চমত, অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষার জন্য সীমিত সংখ্যক নিরীক্ষা কর্মকর্তা থাকা সত্ত্বেও এইসব প্রতিষ্ঠানের হিসাবের অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিক উভয় ধরনের সংবিধিবদ্ধ অডিট জেলায় নিয়মিত হচ্ছে। এখন পর্যন্ত সরকারের কোনো গুরুতর অনিয়ম বা অপব্যবহারের কোনো ঘটনা ঘটেনি। এসব সংবিধিবদ্ধ নিরীক্ষার প্রতিবেদনে টাকা উঠে এসেছে।

ষষ্ঠত, এই পঞ্চায়েত সংস্থাগুলির কাজকর্মে যৌথ দায়িত্বের নীতি অর্জনের প্রচেষ্টা করা হয়েছে। এই উদ্দেশ্যে পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদ স্তরে বিভিন্ন স্থায়ী সমিতির নিয়মিত সভা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং জেলা কর্তৃপক্ষ কঠোরভাবে তত্ত্বাবধান করেছে। বাজেট বাধ্যতামূলক ভিত্তিতে স্থয়ী সমিতি অনুসারে তৈরি করতে হবে।

ত্রি-স্তর পঞ্চায়েত ব্যবস্থার উপর সংক্ষিপ্ত প্রতিবেদন

১৯৭৮ সালে পশ্চিমবঙ্গে তিন স্তরের পঞ্চায়েত ব্যবস্থা সফলভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে। তিনটি স্তর হল গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদ। পঞ্চায়েত সংস্থা শহুরে অংশ বাদে শুধুমাত্র গ্রামীণ এলাকা জুড়ে। এই পঞ্চায়েত ব্যবস্থার মাধ্যমে মানুষ তাদের নিজেদের সুবিধা এবং উন্নয়নের জন্য তৃণমূল স্তরে অংশগ্রহণ করতে পারে। ত্রি-স্তরীয় ব্যবস্থার বিশদ বিবরণ নীচে সংক্ষেপে আলাদাভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

গ্রাম পঞ্চায়েত

এটি তৃণমূল স্তরে পঞ্চায়েত ব্যবস্থার প্রথম স্তর।একটি গ্রাম পঞ্চায়েত কয়েকটি গ্রাম সভা নিয়ে গঠিত। তাই গ্রামসভা হল জিপির মৌলিক ইউনিট এবং একটি গ্রামসভা একটি নির্বাচনী ভূমিকার অংশের সমতুল্য।একটি গ্রামসভা ভোটার তালিকা অংশে মোট ভোটার সংখ্যার উপর নির্ভর করে এক বা দুইজন সদস্যকে ফেরত দিতে পারে।একজন জিপিতে সর্বোচ্চ ২৫ জন সদস্য থাকতে পারে যার মধ্যে ১/৩ অংশ মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত। জনসংখ্যার অনুপাতে SC ও ST-এর প্রতিনিধিও সংরক্ষিত।
জিপির প্রধান প্রধান নামে পরিচিত এবং তার ডেপুটি উপপ্রধান। উভয়েরই গ্রামসভার সদস্য হতে হবে এবং সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের সমর্থন পেতে হবে। এই দু’জন ছাড়াও, গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসের অন্যান্য কর্মীরা হলেন একজন সচিব (কেরানি কর্মী), কৃষি বিভাগের একজন কেপিএস (কৃষি প্রজেক্টি সহায়ক) এর চাকরি সহকারী, ভূমি রেকর্ডের একজন রাজস্ব পরিদর্শক এবং কয়েকজন চৌকিদার।
প্রধানের কাছে DDO-এর ক্ষমতা রয়েছে এই প্রকল্পগুলি উভয় রাজ্য সরকার দ্বারা স্পনসর করা হয়।এবং কেন্দ্রীয় সরকার যেমন IRDP, JRY, পরিবার পরিকল্পনা, সামাজিক বনায়ন ইত্যাদি। দারিদ্র্য বিমোচন এবং নিরক্ষরতা দূরীকরণ, বন্যা, খরা ইত্যাদির মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় সংকট ব্যবস্থাপনার মতো কর্মসূচিও জিপি দ্বারা সম্পাদিত হয়।

পঞ্চায়েত সমিতি

পঞ্চায়েত সমিতি পঞ্চায়েত ব্যবস্থার দ্বিতীয় স্তর। একটি পঞ্চায়েত সমিতির এখতিয়ার হল একটি ব্লক উন্নয়ন অফিস এলাকা। পঞ্চায়েত সমিতি বেশ কয়েকটি GP নিয়ে গঠিত।একটি GP-এর PS-এর জন্য 2 বা 3 জন সদস্য থাকতে পারে সেই GP মহিলা সদস্যদের প্রতিনিধিত্ব মোট আসনের 1/3-এর কম হওয়া উচিত নয় এবং SC ও ST সদস্যরা পঞ্চায়েত সমিতিতে প্রয়োজনীয় সংরক্ষণ পায়৷
পঞ্চায়েত সমিতির প্রধান “সভাপতি” এবং সহায়তা করেন “সহসভাপতি”।তাদের অবশ্যই পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য হতে হবে এবং সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের দ্বারা নির্বাচিত হতে হবে।পঞ্চায়েত সমিতিকে ব্লক ডেভেলপমেন্ট অফিসের অনেক কেরানি কর্মী এবং এক্সটেনশন অফিসাররা সাহায্য করেন। BDO তার পদের ভিত্তিতে পঞ্চায়েত সমিতির নির্বাহী কর্মকর্তা।
ব্লক স্তরে সমস্ত উন্নয়ন প্রকল্প BDO এর সহায়তায় পঞ্চায়েত সমিতি দ্বারা পরিকল্পিত এবং কার্যকর করা হয়। DDO-এর ক্ষমতা নেই ব্লক উন্নয়ন ও অফিসার পঞ্চায়েত সমিতির নির্বাহী অফিসারের ক্ষমতায় DDO-এর কাজ করেন।পঞ্চায়েত সমিতি জেলা পরিষদ এবং গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে। পঞ্চায়েত সমিতির অন্যতম প্রধান কাজ হল ব্লক প্ল্যানিং কমিটির মাধ্যমে অনুমোদিত বিভিন্ন বিভাগের উন্নয়নমূলক প্রকল্পগুলির জন্য ব্লক প্ল্যান তৈরি করা, যার সভাপতি হলেন সভাপতি এবং পরে সেই স্কিমগুলির বাস্তবায়ন পর্যবেক্ষণ করা।

জেলা পরিষদ

জেলা পরিষদ পঞ্চায়েত ব্যবস্থার তৃতীয় এবং শীর্ষ স্তর।জেলা পরিষদের এখতিয়ার সমগ্র জেলার গ্রামীণ অংশ।প্রতিটি ব্লক জেলা পরিষদের জন্য দুইজন সদস্যকে ফেরত দেয়।জেলা পরিষদের জন্যও ন্যূনতম 1/3 সদস্য অবশ্যই মহিলাদের হতে হবে এবং জনসংখ্যার অনুপাতে SC ও ST সদস্যদের প্রয়োজনীয় সংখ্যক হতে হবে।জেলার সকল বিধায়ক ও সাংসদরা জেলা পরিষদের পদাধিকারবলে সদস্য।
নির্বাচিত জেলা পরিষদ সদস্যদের মধ্য থেকে “সভাধিপতি” প্রধান, “সহ সভাধিপতি” এবং কয়েকজন “কর্মদক্ষ” নিয়ে জেলা পরিষদ সংস্থা গঠিত হয়।জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হলেন নির্বাহী আধিকারিক যার ডিডিওর কার্যকারিতার ক্ষমতা রয়েছে।একজন অ্যাড.এডিএম পদমর্যাদার নির্বাহী আধিকারিক, সিনিয়র ডব্লিউবিসিএস (প্রাক্তন) থেকে একজন সচিব, পশ্চিমবঙ্গ অডিট অ্যাকাউন্টস পরিষেবা থেকে একজন অ্যাকাউন্টস অফিসারকে জেলা পরিষদে প্রশাসনিক কাজে সাহায্য করার জন্য নিযুক্ত করা হয়েছে।জেলা পরিষদের একটি প্রকৌশল শাখা রয়েছে যার নেতৃত্বে জেলা প্রকৌশলী পদমর্যাদার নির্বাহী প্রকৌশলী এবং বিভিন্ন উপ-সহকারী প্রকৌশলী বিভিন্ন নির্মাণ কাজ পরিচালনা করেন।

পঞ্চায়েত সমিতি এবং গ্রাম পঞ্চায়েতের সাথে ঘনিষ্ঠ সমন্বয়ের মাধ্যমে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব জেলা পরিষদের।সভাধিপতি বিভিন্ন রাজ্য সরকারের তত্ত্বাবধান ও পর্যবেক্ষণের জন্য সমস্ত জেলা স্তরের কমিটির চেয়ারম্যান এবং কেন্দ্রীয় সরকার স্পনসর করা প্রকল্প।সভাধিপতি জেলা পরিকল্পনা কমিটির চেয়ারম্যান যিনি জেলা পরিকল্পনা অনুমোদন করে এবং বাজেট বরাদ্দের জন্য উন্নয়ন ও পরিকল্পনা বিভাগে পাঠায়।

এই তিনটি স্তর ছাড়াও, জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের জেলা পঞ্চায়েত অফিসারের নেতৃত্বে একটি পঞ্চায়েত বিভাগ রয়েছে যা জিপি এবং পঞ্চায়েত সমিতির কার্যকারিতা পর্যবেক্ষণ করে।এই অফিসটি বিভিন্ন সরকারী আদেশ, বিজ্ঞপ্তি ইত্যাদির উপর পঞ্চায়েত সংস্থা এবং পঞ্চায়েত অধিদপ্তরের সাথে যোগাযোগ করে। এই অফিসে ব্লক স্তরে একজন কর্মী রয়েছে যা পঞ্চায়েতের সম্প্রসারণ অফিসার হিসাবে পরিচিত যারা পঞ্চায়েত সংস্থাগুলির সাথে যোগাযোগ করতে পঞ্চায়েত বিভাগকে সাহায্য করে।


মহকুমা এবং ব্লকের মধ্যে সম্পর্ক

মহকুমার নাম

ব্লকের নাম কোড  মহকুমার নাম ব্লকের নাম কোড 
কোচবিহার সদর কোচবিহার – ১ 01 মেখলিগঞ্জ মেখলিগঞ্জ 08
  কোচবিহার – ২ 02   হলদিবাড়ি 05
দিনহাটা দিনহাটা – ১ 03 তুফানগঞ্জ তুফানগঞ্জ- ১ 11
  দিনহাটা – ২ 04   তুফানগঞ্জ – ২ 12
  সিতাই 09      
মাথাভাঙ্গা মাথাভাঙ্গা – ১ 06      
  মাথাভাঙ্গা – ২ 07      
  শীতলকুচি 10      

ব্লক এবং গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে সম্পর্ক (GPs)

ব্লকের নাম

জিপির নাম কোড  ব্লকের নাম জিপির নাম কোড 
কোচবিহার – ১
15 জিপি
চান্দামারী 0101 হলদিবাড়ি
6 জিপি
বক্সিগঞ্জ 0501
  চিলকিরহাট 0102   দক্ষিণ বড় হলদিবাড়ি 0502
  দাওয়াগুড়ি 0103   দেওয়ানগঞ্জ 0503
  দেওয়ানহাট 0104   হেমকুমারী 0504
  ফালিমারি 0105   পার মেখলিগঞ্জ 0505
  ঘুগুমারি 0106   উত্তর বড় হালদিবাড়ি 0506
  গুড়িয়াহাটি – ১ 0107 মাথাভাঙ্গা-১
10 জিপি
বৈরাগীরহাট 0601
  গুড়িয়াহাটি – ২ 0108   গোপালপুর 0602
  হরিভাঙ্গা 0109   হাজরাহাত -১ 0603
  জিরানপুর 0110   হাজরাহাত-২ 0604
  মোয়ামারি 0111   জোড়পাটকি 0605
  পানিশালা 0112   কেদারহাট 0606
  পাতাছড়া 0113   কুর্শামারি 0607
  পুটিমারী ফুলেশ্বরী 0114   নয়ারহাট 0608
  সুখবরী 0115   পচাগড় 0609
কোচবিহার – ২
13 জিপি
আম্বারি 0201   সিকরপুর 0610
  বানেশ্বর 0202 মাথাভাঙ্গা-২
10 জিপি
আঙ্গেরকাটা পরদুবি 0701
  বাররাংগ্রাস 0203   বড় সোলমারি 0702
  চকচকা 0204   ফুলবাড়ি 0703
  ধানধিংগুড়ি 0205   ঘোকশাডাঙ্গা 0704
  গোপালপুর 0206   লতাপাতা 0705
  খাগড়াবাড়ি 0207   নিশিগঞ্জ-আই 0706
  খাপাইডাঙ্গা 0208   নিশিগঞ্জ-২ 0707
  মধুপুর 0209   প্রেমেরডাঙ্গা 0708
  মারিছবাড়ি খুলতা 0210   রুইডাঙ্গা 0709
  পাতলাখাওয়া 0211   উনিশবিশা 0710
  পুন্ডিবাড়ি 0212 মেখলিগঞ্জ
৮ জিপি মো
বাগডোকরা ফুলকাদবরি 0801
  টাকাগাছ রাজারহাট 0213   ভোটবাড়ি 0802
দিনহাটা-১
16 জিপি
বড় আতিয়াবাড়ি – ১ 0301   চ্যাংড়াবান্ধা 0803
  বড় আতিয়াবাড়ি – ২ 0302   জামালদহ 0804
  বড় সোলমারি 0303   কুচলিবাড়ি 0805
  ভাতগুড়ি – ১ 0304   নিজতারফ 0806
  ভাতগুড়ি – ২ 0305   রানীরহাট 0807
  দিনহাটা গ্রাম – ১ 0306   উচালপুকুড়ি 0808
  দিনহাটা গ্রাম – ২ 0307 সিতাই
5 জিপি
আদাবাড়ি ঘাট 0901
  গীতলদহ – ১ 0308   ব্রহ্মত্তর ছত্র 0902
  গীতলদহ – ২ 0309   চামটা

0903

  গোসানিমারি – ১ 0310   সিতাই – ১

0904

  গোসানিমারি – ২ 0311   সিতাই – ২

0905

  মাতালহাট 0312 শীতলকুচি
৮ জিপি
বড় কৈমারি

1001

  ওকরাবাড়ি 0313   ভাওয়ারথানা

1002

  পেটলা 0314   ছোট শালবারী

1003

  পুটিমারী – ১ 0315   গোলেনাওহাটি

1004

  পুটিমারি – ২ 0316   গোসাইরহাট

1005

দিনহাটা-২
12 জিপি
বামনহাট – ১ 0401   খালিসামারী

1006

  বামনহাট – ২ 0402   লালবাজার

1007

  বড় সাকদল 0403   শীতলকুচি

1008

  বুড়িরহাট – ১ 0404 তুফানগঞ্জ – ১
14 জিপি
আন্দরন ফুলবাড়ী-১

1101

  বুড়িরহাট – ২ 0405   আন্দরন ফুলবাড়ী-২

1102

  চৌধুরীহাট 0406   বলভুত

1103

  গোবরাছড়া
নয়ারহাট
0407   বলরামপুর – ১

1104

  কিসমত দাসগ্রাম 0408   বলরামপুর – ২

1105

  নাজিরহাট – ১ 0409   চিলাখানা – ১

1106

  নাজিরহাট – ২ 0410   চিলাখানা – ২

1107

  সাহেবগঞ্জ 0411   দেওছড়াই

1108

  শুক্রকুঠি 0412   ধলপাল – ১

1109

তুফানগঞ্জ – ২
11 জিপি
বারোকোদালি – ১ 1201   ধলপাল – ২

1110

  বারোকোদালি – ২ 1202   মারুগঞ্জ

1111

  ভানুকুমারী – ১ 1203   নককাটিগাছ

1112

  ভানুকুমারী – ২ 1204   নাটাবাড়ী – ১

1113

  ফালিমারি 1205   নাটাবাড়ি – ২

1114

  মহিস্কুচি – ১ 1206    

 

  মহিষকুচি – ২ 1207    

 

  রামপুর – ১ 1208    

 

  রামপুর – ২ 1209    

 

  শালবাড়ি – ১ 1210    

 

  শালবাড়ি – ২ 1211    

 


পৌরসভা (মোট ওয়ার্ড : ৭৮)

ক্রমিক নং

পৌরসভা ব্লক আবৃত ওয়ার্ডের সংখ্যা ক্রমিক নং পৌরসভা ব্লক আবৃত ওয়ার্ডের সংখ্যা
1. কোচবিহার কোচবিহার – ১ 20 4. তুফানগঞ্জ তুফানগঞ্জ- ১ 12
2. দিনহাটা দিনহাটা – ১ 15 5. মেখলিগঞ্জ মেখলিগঞ্জ 9
3. মাথাভাঙ্গা মাথাভাঙ্গা – ১ 12 6. হলদিবাড়ি হলদিবাড়ি 10


থানা/ থানা

ক্রমিক নং থানা সীমানার দৈর্ঘ্য
(কিমিতে)
মহকুমা ক্রমিক নং থানা সীমানার দৈর্ঘ্য
(কিমিতে)
মহকুমা
1. কোচবিহার কোতোয়ালি এন.এ কোচবিহার সদর 9.  মাথাভাঙ্গা 50.11 মাথাভাঙ্গা
2. পুন্ডিবাড়ি এন.এ   10. ঘোকসাডাঙ্গা এন.এ  
3. সাইবার ক্রাইম থানা এন.এ   11. শীতলকুচি 71.93  
4. সদর মহিলা থানা মো এন.এ   12। হলদিবাড়ি 38.9 মেখলিগঞ্জ
5. দিনহাটা এন.এ দিনহাটা 13. মেখলিগঞ্জ 161.43  
6. সাহেবগঞ্জ 143.79   14. কুচলিবাড়ি  
7. সিতাই 44.12   15। তুফানগঞ্জ ৩৯.৯৮ তুফানগঞ্জ
8. দিনহাটার মহিলা পিএস মো এন.এ   16. বক্সিরহাট এন.এ  
 

 

বিভাজক